কানের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায় | Ear Pain Treatment In Bengaliকানের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায় | Ear Pain Treatment In Bengali

কানের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায়, কারণ ও লক্ষণEar Pain Treatment At Home (Ear Pain Treatment In Bengali)

কানে ব্যথার কারণে অনেক ব্যক্তি চিন্তিত, এটি অসহ্য ব্যথার কারণ হয় যার কারণে যে কেউ চিন্তিত হয়ে পড়ে। কানে ব্যথা বেশির ভাগই ছোট শিশুদের হয়, তারা কথা বলতে পারে না এবং ব্যথা বেড়ে যায়। বেশিরভাগ সময়ই আমরা কানের ব্যথার কারণ বুঝতে পারি না এবং ভুল চিকিৎসা হয়।

কানের ব্যথার কারণ ও লক্ষণ


ক্রমিক সংখ্যা
কানের ব্যথার কারণকানের সমস্যার লক্ষণ
1যেকোনো ধরনের সংক্রমণকানে ব্যথা অনুভব করা
2সর্দিকানে ক্রমাগত চুলকানি
3অতিরিক্ত কানের ময়লাঘুমের সমস্যা
4কানে পোকা ঢুকে যাওয়ামাথাব্যথা
5উচ্চ বায়ুচাপের কারণেশ্রবনে অসুবিধা
6এলার্জিমাত্রাতিরিক্ত জ্বর
7 বমি

কানের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায়  (Ear Pain Treatment At Home)

আমরা সহজেই ঘরে বসে কানের ব্যথার চিকিৎসা করতে পারি। অনেক সময় এই ব্যথা হঠাৎ করে রাতে শুরু হয়, এমন সময় বাড়িতেই এর চিকিৎসা করুন যা আপনাকে তাৎক্ষণিক উপশম দেবে।

অলিভ অয়েল

অলিভ অয়েল কানের ব্যথা থেকে দ্রুত মুক্তি দেয়। এটি একটি লুব্রিকেন্টের মতো যা সহজেই কানের ভিতরে যায় এবং এর সংক্রমণ দূর করে। অলিভ অয়েল কানে বাজানোর অনুভূতি থেকেও মুক্তি দেয়।

  • অলিভ অয়েল সামান্য গরম করে কানে ৩-৪ ফোঁটা দিন।
  • এ ছাড়া কটন বাড তেলে ডুবিয়ে কানে লাগান।

অলিভ অয়েলের পরিবর্তে সরিষার তেলও ব্যবহার করতে পারেন।

আরো পড়ুন: স্বাস্থ্যকর চোখের জন্য 10টি খাবার অবশ্যই খাদ্য তালিকায় থাকা উচিত 

রসুন –

রসুন একটি অ্যান্টিবায়োটিক, এটি কানের সংক্রমণ দূর করে। এটি কানের ব্যথা খুব দ্রুত উপশম করে।

  • সরিষার তেল দিয়ে 2-3টি সূক্ষ্মভাবে কাটা রসুন কুঁচি গরম করুন। এবার ঠান্ডা করে ফিল্টার করে নিন। এই তেলের 2-3 ফোঁটা কানে লাগালে আপনি তাৎক্ষণিক ব্যথা থেকে মুক্তি পাবেন।
  • এছাড়া রসুনের রস বের করে কানে লাগান।

পেঁয়াজ –

পেঁয়াজ হল ঘরে সহজলভ্য একটি উপাদান, যা আমাদের কানের ব্যথায় তাৎক্ষণিক উপশম দেবে। পেঁয়াজ খুবই কার্যকর কারণ এটি ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিসেপটিক।

  • ১ চা চামচ পেঁয়াজের রস বের করে হালকা গরম করে নিন। দিনে 3-4 বার কানে 2-3 ফোঁটা দিন।
  • কিছু পেঁয়াজ নিন এবং এটি একটি পরিষ্কার কাপড়ে শক্তভাবে মুড়িয়ে দিন। এবার কানে লাগিয়ে রাখুন ৫-১০ মিনিট। দিনে কয়েকবার এই প্রক্রিয়াটি পুনরাবৃত্তি করুন।

আদা –

রসুন ও পেঁয়াজের মতো আদাও কানের ব্যথা উপশমে সহায়ক। এটি একটি প্রাকৃতিক ব্যথানাশক যা খুব দ্রুত উপশম দেয়।

  • আদার রস বের করে কানে ২-৩ ফোঁটা দিন।
  • এ ছাড়া অলিভ অয়েলে গ্রেট করা আদা মিশিয়ে কিছুক্ষণ রেখে দিন। এবার ছেঁকে নিয়ে কানে তেল ঢালুন।

গরম জলের সেঁক –

ঠাণ্ডাজনিত কানের ব্যথা নিরাময়ে গরম পানি প্রয়োগ খুবই কার্যকর। একটি বোতলে গরম পানি ভরে নিন, এবার একটি তোয়ালে মুড়িয়ে কানের চারপাশে লাগান। এতে করে কানের ভেতরের ব্যথা খুব দ্রুত সেরে যায়।

পুদিনা –

পেপারমিন্ট তেল এবং এর পাতা উভয়ই কানের ব্যথা থেকে মুক্তি দেয়। এটি কানের ভেতরের অদ্ভুত শব্দ দূর করে।

  • তাজা পুদিনা পাতার রস ড্রপারের সাহায্যে কানে ঢালুন।
  • এছাড়া তুলোর সাহায্যে কানের বাইরের অংশে পিপারমিন্ট অয়েল লাগান। এটি কানের ভিতরে ঢোকানো হয় না। আপনি এটি অলিভ অয়েল বা সরিষার তেলের সাথে মিশিয়ে এটি যোগ করতে পারেন।

তুলসী –

তুলসীর উপকারিতা আমি আগেই বলেছি, তুলসীর আরেকটি উপকারিতা হল এটি কানের ব্যথা উপশম করে।

  • তাজা তুলসী পাতার রস বের করুন।
  • এবার কানে কয়েক ফোঁটা দিন।
  • এভাবে দিনে দুবার করলে ব্যথা চলে যাবে।

নিম –

নিম যেকোনো ধরনের সংক্রমণ দূর করতে পারে। এটি দ্রুত কানের ব্যথা এবং সংক্রমণ থেকে মুক্তি দেয়।

  • নিমের রস বের করে এবার ২-৩ ফোঁটা কানে দিন।
  • তুলো দিয়ে কানে কয়েক ফোঁটা নিম তেল দিন। এরপর কানে তুলা লাগান। কিছুক্ষণ পর বের করে নিন। এটি দিনে 2-3 বার করুন।

আরো পড়ুন: উচ্চ কোলেস্টেরল লক্ষণ ও চিকিৎসা

চুল শুকানোর যন্ত্র –

হেয়ার ড্রায়ারও কানের ব্যথা কমায়। অনেক সময় ঠান্ডা বাতাস বা পানির কারণে কানে ব্যথা হয়। ড্রায়ার থেকে গরম বাতাস সহজেই ভিতরে যায় যা কানের অতিরিক্ত আর্দ্রতা শুকিয়ে যায়। ড্রায়ার কান থেকে কিছু দূরত্বে রাখুন। এটি 5 মিনিটের বেশি করবেন না।

আমের পাতা-

আম পাতা কানের ব্যথা থেকেও মুক্তি দেয়।

  • তাজা আমের পাতা পিষে এর রস বের করুন। এটি সামান্য উষ্ণ করুন।
  • একটি ড্রপার ব্যবহার করে কানে 3-4 ড্রপ দিন। কিছুক্ষণ পরেই আরাম পাবেন।
  • দিনে 3-4 বার এটি করলে আপনি সম্পূর্ণ উপশম পাবেন।

এই সমস্ত পদ্ধতি অবলম্বন করে আপনি কানের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। আপনার যদি গুরুতর সমস্যা থাকে তবে অবশ্যই আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। এই পদ্ধতিগুলি থেকে আপনি কতটা স্বস্তি পেয়েছেন দয়া করে আমাদের বলুন। আপনার যদি অন্য কোন পদ্ধতি থাকে তবে সেটিও শেয়ার করুন।


পরামর্শ – আপনার রোগ এবং শরীরের ক্ষমতা অনুযায়ী এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি ব্যবহার করুন। আপনি যদি এটি ব্যবহার করে কোনো ধরনের অ্যালার্জি বা কোনো সমস্যার সম্মুখীন হন, তাহলে আমাদের ওয়েবসাইট infobangla.co.in এর জন্য দায়ী থাকবে না।

iNFO বাংলা দেখার জন্য ধন্যবাদ

By Tanmoy

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *