হাঁপানির ঘরোয়া প্রতিকার | Home Remedies For Asthmaহাঁপানির ঘরোয়া প্রতিকার | Home Remedies For Asthma

হাঁপানির ঘরোয়া প্রতিকার, কারণ ও লক্ষণ, কিভাবে ব্যবহার করবেন (Home Remedies For Asthma In Bengali)

হাঁপানি ফুসফুসের সাথে সম্পর্কিত একটি রোগ, যেখানে একজন ব্যক্তির শ্বাস নিতে অসুবিধা হয়। যখন ফুসফুসে বাতাস ঠিকমতো প্রবাহিত হয় না, শ্বাস নিতে অসুবিধা হয়, একে অ্যাজমা অ্যাটাক বলে। এমন সময় শরীরের বাকি অংশে অক্সিজেন পৌঁছাতে পারে না, যার কারণে ব্যক্তির কষ্ট শুরু হয়, এমন অবস্থায় মানুষ মারাও যেতে পারে। হাঁপানি পুরোপুরি নিরাময় হয় না, চিকিৎসকের পরামর্শে নিয়ন্ত্রণে রাখা হয়। কিছু ঘরোয়া প্রতিকারও এটিকে অনেকাংশে নিয়ন্ত্রণ করে।

হাঁপানির কারণ ও লক্ষণ

হাঁপানির সঠিক কারণ জানা যায়নি, তবে এই কয়েকটি কারণে এটি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

 হাঁপানির কারণেহাঁপানির লক্ষণ
1এলার্জিকফ
2বায়ু দূষণশ্বাস নেওয়ার সময় শব্দ
3শ্বাস নালীর সংক্রমণনাক দিয়ে শ্বাস নিতে অসুবিধা
4আবহাওয়ার পরিবর্তনবুকে চাপ অনুভব হওয়া
5খাদ্যে সালফারের অত্যধিক পরিমাণনার্ভাসনেস

হাঁপানির ঘরোয়া প্রতিকার (home remedies for asthma)

আদা –

আদা একটি প্রাকৃতিক প্রতিকার। এটি হাঁপানির চিকিৎসার জন্য খুবই উপযোগী বলে মনে করা হয়। আদা নানাভাবে ব্যবহার করা যায়।

কিভাবে ব্যবহার করবেন (How to use) 

  • আদার রস, ডালিমের রস ও মধু সমপরিমাণে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি 1 চা চামচ দিনে 2-3 বার নিন।
  • এছাড়া দেড় কাপ জলে এক চা চামচ কোড়া আদা মিশিয়ে নিন। এটি প্রতিদিন ঘুমানোর আগে এক চামচ পান করুন।
  • ১ ইঞ্চি আদা ছোট ছোট টুকরো করে কেটে ফুটন্ত জলে দিন। ঠাণ্ডা করে পান করুন।
  • আদা লবণ মিশিয়ে খান।

আরো পড়ুন: মুখের আলসারের লক্ষণ ও ঘরোয়া প্রতিকার

সরিষা তেল –

অ্যাজমা অ্যাটাক হলে সরিষার তেল দিয়ে মালিশ করলে শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক হতে সাহায্য করে।

  • সরিষার তেল সামান্য গরম করুন, এবার বুকে ও পিঠে মালিশ করুন। এটি দিনে কয়েকবার করুন এবং আপনি স্বস্তি পাবেন।

ডুমুর

ডুমুরে উপস্থিত পুষ্টিগুণ হাঁপানির মতো রোগও সারায়। ডুমুর শ্বাসকষ্ট দূর করে।

  • ৩টি ডুমুরের টুকরো ১টি জলে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন।
  • সকালে খালি পেটে এই ডুমুর খান এবং এর জল পান করুন। এই প্রক্রিয়াটি কয়েক মাস করতে থাকুন।

রসুন

রসুন হাঁপানির একেবারে শুরুতেই ফুসফুস পরিষ্কার করে। যার কারণে এই সমস্যা বাড়ে না।

  • ¼ কাপ দুধে 2-3টি রসুনের কুঁচি দিয়ে ফুটিয়ে নিন।
  • ঠাণ্ডা করে পান করুন। এভাবে একটানা কয়েকদিন করলে হাঁপানি থেকে দারুণ আরাম পাবেন।

কফি –

কফিতে উপস্থিত ক্যাফেইন হাঁপানির আক্রমণ প্রতিরোধ করে। গরম কফি আপনাকে আরাম দেয় এবং শ্বাসতন্ত্রকেও পরিষ্কার করে, যা শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তি দেয়। কফি যত শক্তিশালী হবে, তত বেশি উপকারী হবে। তবে দিনে 2-3টির বেশি কালো কফি পান করবেন না। আপনি যদি কফি পছন্দ না করেন তবে আপনি কালো চা পান করতে পারেন।

পরামর্শ – অতিরিক্ত ক্যাফেইন গ্রহণ করবেন না, এটি আপনার অভ্যাসে অন্তর্ভুক্ত করবেন না।

মধু –

মধু হাঁপানির অনেক পুরনো চিকিৎসা, এটি হাঁপানির উপসর্গ কমায়। মধুতে রয়েছে প্রাকৃতিক পুষ্টি উপাদান। মধু ফুসফুসে মিউকাসের সমস্যা থেকে মুক্তি দেয়।

  • জলে মধু মিশিয়ে সিদ্ধ করুন এবার এই জল দিয়ে ভাপ নিন।
  • দিনে ২-৩ বার হালকা গরম জলের সাথে ১ চা চামচ মধু খান।
  • রাতে ঘুমানোর আগে আধা চা চামচ দারুচিনির গুঁড়ার সাথে ১ চা চামচ মধু মিশিয়ে খান। এটি আপনাকে রাতে আরামদায়ক ঘুমও দেবে।

পেঁয়াজ –

পেঁয়াজে উপস্থিত উপাদান হাঁপানির চিকিৎসায় উপকারী। পেঁয়াজ ধীরে ধীরে চিবিয়ে নিন, এতে শ্বাসতন্ত্র পরিষ্কার হবে যাতে আপনি সহজে শ্বাস নিতে পারবেন। আপনি যদি কাঁচা পেঁয়াজ পছন্দ না করেন তবে আপনি এটি রান্না করেও খেতে পারেন। তবে অবশ্যই এটি আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করুন।

জোয়ান

এটি হাঁপানির সমস্যা থেকেও মুক্তি দেয়।

  • জলে জোয়ান রেখে সিদ্ধ করুন, এবার তা থেকে ভাপ নিন।
  • ১ চামচ জোয়ান জলেতে ফুটিয়ে পান করুন।
  • কিছু জোয়ান গরম করে একটি সুতির কাপড়ে মুড়ে নিন।এবার বুকে ও ঘাড়ে লাগিয়ে রাখুন। আপনার প্রতিদিন এভাবে পড়া উচিত।
  • এছাড়া গুড়ের সাথে জোয়ান মিশিয়ে দিনে দুবার ১-২ চা চামচ করে খান। ডায়াবেটিস রোগীদের এটি গ্রহণ করা উচিত নয়।

আরো পড়ুন: বমি বন্ধ করার ঘরোয়া উপায় 

মূলা –

কিছু মুলা গ্রেট করে তাতে ১ চা চামচ মধু ও লেবুর রস যোগ করুন এবং কিছুক্ষণ রান্না করুন। এখন প্রতিদিন এক চামচ করে খান। এটি খুবই উপকারী একটি চিকিৎসা।

করলা –

করলা যত বেশি তেতো তত বেশি উপকারী। করলা হাঁপানিও নিয়ন্ত্রণ করে। করলা পিষে পেস্ট তৈরি করুন এবার এতে তুলসী পাতার রস ও মধু যোগ করুন। দিনে এক চামচ করে খান। কোনো অ্যালার্জির কারণে হাঁপানি হলে তা উপশম করে।

মেথি-

মেথি ও করলাও উপকারী। এর ব্যবহারে হাঁপানির সমস্যা সেরে যায়। 1 গ্লাস জলে 2 চামচ মেথি বীজ 1/3 না হওয়া পর্যন্ত সিদ্ধ করুন। এবার এতে এক চামচ আদার রস ও মধু মিশিয়ে নিন। প্রতিদিন একবার করে পান করুন।

অন্যান্য সমাধান –

  • আপনার হাঁপানির ট্রিগার সবসময় আপনার সাথে রাখুন, যতটা সম্ভব পরিষ্কার জায়গায়। বায়ু দূষণের কারণে এই সমস্যা হতে পারে।
  • যতটা সম্ভব মশলা, তাজা ফল এবং সবুজ শাকসবজি খান।
  • প্যাকেটজাত খাবার এড়িয়ে চলুন কারণ এতে প্রচুর রাসায়নিক থাকে যা ফুসফুসের ক্ষতি করে।
  • যতটা সম্ভব দুধের পণ্য ব্যবহার করুন, এটি শরীরে প্রোটিন সরবরাহ করবে যা আপনাকে দ্রুত এই রোগ থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করবে।

হাঁপানিতে আক্রান্ত রোগীর নিজের যত্ন নেওয়া উচিত এবং যতটা সম্ভব খোলা পরিবেশে থাকা উচিত, বন্ধ জায়গায় শ্বাসরোধ হতে পারে যা সমস্যা বাড়িয়ে তুলতে পারে। আপনার কাছাকাছি কোনো হাঁপানির রোগী থাকলে তাকে এই ঘরোয়া প্রতিকার সম্পর্কে বলুন যার কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই, আপনি চাইলেই ব্যবহার করতে পারেন।


iNFO বাংলা দেখার জন্য ধন্যবাদ

By Tanmoy

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *