সোলার ইনভার্টার প্রযুক্তি কি |Solar Inverter Technology in Bengaliসোলার ইনভার্টার প্রযুক্তি কি |Solar Inverter Technology in Bengali

ইনভার্টার প্রযুক্তি কি, সোলার ইনভার্টার সিস্টেম, দাম, তালিকা (Solar Inverter Technology in Bengali, Cost, Connection)

ইনভার্টার আজকাল দৈনন্দিন জীবনের একটি অংশ হয়ে উঠেছে। ভারতে বিদ্যুতের সমস্যা থেকে কেউই বাদ নেই। ঘন ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে মানুষ খুবই উদ্বিগ্ন থাকে, এমন পরিস্থিতিতে মানুষ তাদের বাড়িতে ও অফিসে ইনভার্টার বসায়, যাতে তারা বিদ্যুৎ সরবরাহ অব্যাহত রাখতে পারে। আজকে আমরা আপনাকে খুব সহজ উপায়ে বলব ইনভার্টার কি এবং কিভাবে কাজ করে। আপনি যদি বিদ্যুতের সমস্যায় অস্থির হয়ে থাকেন এবং একটি ইনভার্টার কেনার পরিকল্পনা করছেন, তাহলে এই পোস্টটি আপনাকে অনেক সাহায্য করতে পারে। আমরা ইনভার্টার সম্পর্কিত প্রতিটি তথ্য বিস্তারিতভাবে ব্যাখ্যা করতে যাচ্ছি, শেষ পর্যন্ত এই নিবন্ধটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

আজকাল, প্রতিটি বাড়িতে, অফিসে এবং বিভিন্ন জায়গায় ইনভার্টার থাকা সাধারণ হয়ে উঠেছে। আমরা অবশ্যই প্রতিদিন এই ছোট জিনিসটি ব্যবহার করি তবে আমরা এটি সম্পর্কে পুরোপুরি সচেতন নই।

ইনভার্টার কি?

আজ আমরা সম্পূর্ণ বিদ্যুতের উপর নির্ভরশীল। আমরা যা কিছু করি তা এর দ্বারা সৃষ্ট বা নির্ভর করে। বাতি নিভে গেলে আমাদের কাজও বন্ধ হয়ে যায়, এতে মানুষ নানাভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হয়। আজ, ফ্যান, কুলার, এসি, ফ্রিজ, মাইক্রোওয়েভ, চিমনি এবং বৈদ্যুতিক জিনিসপত্রের মতো সবকিছুই বিদ্যুতে চলে। বাতি নিভে গেলে ঘরের বৈদ্যুতিক যন্ত্রগুলো পাওয়ার সাপ্লাই পায় না, এমন অবস্থায় ইনভার্টার তাদের কাছে বিদ্যুৎ পাঠায়, এরপর তারা আগের মতো চলতে শুরু করে। ইনভার্টার হল এক ধরনের সাপোর্ট সিস্টেম, যা পাওয়ার হাউস থেকে পাওয়ার না থাকলে বৈদ্যুতিক সরঞ্জামগুলিতে শক্তি সরবরাহ করে। ইনভার্টার অনেক ধরনের আছে, যার বিভিন্ন সীমা আছে। লোকেরা তাদের প্রয়োজন এবং ইচ্ছা অনুসারে এটি প্রয়োগ করতে পারে।

সোলার ইনভার্টার কি? (What is Solar Inverter)

একটি বৈদ্যুতিন সংকেতের মেরু বদল একটি সৌর শক্তি সিস্টেমের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সরঞ্জামগুলির মধ্যে একটি। এটি সাধারণ বৈদ্যুতিন সংকেতের মেরু বদল থেকে ভিন্ন, যা ভিন্নভাবে কাজ করে। সোলার ইনভার্টার একটি সাধারণ ইনভার্টার থেকে একটু বেশি ব্যয়বহুল, তবে এতে আর কোন খরচ নেই, মানে এটি এককালীন খরচ এবং তারপর আপনি এটি থেকে সুবিধা পেতে থাকবেন। এটি এমন একটি ডিভাইস যা সরাসরি কারেন্ট (ডিসি) বিদ্যুতকে রূপান্তর করে, যা একটি সৌর প্যানেল উৎপন্ন করে, বিকল্প কারেন্ট (এসি) বিদ্যুতে, যা বৈদ্যুতিক গ্রিড ব্যবহার করে।

সোলার ইনভার্টার কিভাবে কাজ করে? (How does solar inverter work)

যেকোন ইনভার্টার চার্জ দিলেই কাজ করতে পারে। অর্থাৎ ঘরে আলো থাকলে ইনভার্টারও সেই বিদ্যুৎ দিয়ে চার্জ হতে থাকে। আলো নিভে গেলে তার চার্জ ক্ষমতা অনুযায়ী চলে। এই সাধারণ বৈদ্যুতিন সংকেতের মেরু বদল অনেক বিদ্যুৎ খরচ করে কারণ এটি চার্জ করার জন্য প্রচুর বিদ্যুৎ ব্যবহার করে। এখন যদি আমরা সোলার ইনভার্টারের কথা বলি, এটি সূর্যের রশ্মি দ্বারা চার্জ হয়, যতক্ষণ এই রশ্মিগুলি থাকে, এটি তাদের শোষণ করে চার্জ হতে থাকে এবং মূল পাওয়ার সাপ্লাই থেকে শক্তি নেয় না। যখন সূর্যালোক থাকে না, তখন এটি নিজেকে প্রধান সরবরাহের সাথে সংযুক্ত করে এবং সেখান থেকে শক্তি গ্রহণ শুরু করে। সোলার প্যানেল থেকে চার্জ করার সময় সোলার ইনভার্টার মেইন লাইনের সরবরাহ বন্ধ করে দেয়। যখন সোলার প্যানেল থেকে সরবরাহ কমে যায়, অর্থাৎ বৃষ্টি ও শীতের সময়, যখন সূর্যের রশ্মি শক্তিশালী হয় না, তখন ইনভার্টার মূল শক্তি থেকে সরবরাহ নেয়।

আরো পড়ুন: সোলার ইনভার্টার প্রযুক্তি কি |Solar Inverter Technology in Bengali

ইনভার্টার কিভাবে কাজ করে?

  • এটি একটি বৈদ্যুতিক যন্ত্র যা এসি (অল্টারনেটিং কারেন্ট) কে ডিসি (ডাইরেক্ট কারেন্ট) কারেন্টে রূপান্তর করে এবং ডিসি ভোল্টেজকে এসি ভোল্টেজে রূপান্তর করে যা বৈদ্যুতিন সংকেতের মেরু বদল ব্যাটারি চার্জ করে।
  • একটি সাধারণ বৈদ্যুতিন সংকেতের মেরু বদল সম্পূর্ণরূপে বাড়ির প্রধান বিদ্যুৎ সরবরাহের উপর নির্ভরশীল, কারণ এটি বাড়ির প্রধান বিদ্যুৎ থেকে চার্জ করে তা পায়। মেইন সাপ্লাই বন্ধ হয়ে গেলে ইনভার্টারও চার্জ করতে পারবে না।
  • বৈদ্যুতিন সংকেতের মেরু বদল প্রধান পাওয়ার সাপ্লাই বাইপাস করে এবং সরাসরি আউটপুট দেয়, যার কারণে বৈদ্যুতিন সংকেতের মেরু বদল ডিসি থেকে এসি তে রূপান্তর করতে সক্ষম হয় না। বৈদ্যুতিন সংকেতের মেরু বদল করার প্রধান পাওয়ার সাপ্লাই বন্ধ হওয়ার সাথে সাথে এটি ব্যাটারি থেকে শক্তি নেয় এবং ডিসি থেকে এসি তে রূপান্তর করে।

ইনভার্টার কত প্রকার? (What are the types of inverters)

এখানে আমরা আপনাকে কত ধরনের ইনভার্টার আছে তা জানাতে যাচ্ছি, যাতে আপনি আরও ভালভাবে বুঝতে পারেন কোন ইনভার্টার কীভাবে কাজ করে এবং এর সুবিধা কী –

  • সংশোধিত সাইন ওয়েভ ইনভার্টার – এটি একটি সাধারণ নিম্ন-গ্রেড বৈদ্যুতিন সংকেতের মেরু বদল। যখন বৈদ্যুতিন সংকেতের মেরু বদল চালু করা হয়, এটি প্রাথমিকভাবে তৈরি করা হয়েছিল। এগুলো খুব কম ধারণক্ষমতার এবং খুব দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। এটি চার্জ করতেও বেশি বিদ্যুৎ খরচ করে। যার কারণে বিদ্যুৎ বিলও বেশি আসে।
  • বিশুদ্ধ সাইন ওয়েভ ইনভার্টার – এগুলি ভাল দক্ষতার সাথে উচ্চ মানের ইনভার্টার। যা একটু ব্যয়বহুল হলেও কাজটি ভালোভাবে করে। এই ধরনের ইনভার্টার কম শক্তি খরচ করে এবং দ্রুত চার্জ হয়। এই ইনভার্টার দিয়ে আপনি সহজেই হাই ভোল্টেজের যন্ত্রপাতি চালাতে পারবেন।

ইনভার্টার এর সুবিধা কি কি?

  • শব্দ ছাড়া কাজ করে – ইনভার্টারগুলি শব্দ মুক্ত, যার অর্থ তারা চালানোর সময় কোন ধরনের শব্দ করে না। যেখানে আগে চলমান উচ্চ ক্ষমতার জেনারেটরগুলি প্রচুর শব্দ করে।
  • কম জায়গা দখল করে – আপনার বাসা/অফিসের ছোট জায়গায় ইনভার্টারগুলি আরামদায়কভাবে ফিট করা হয়। এটি খুব বড় জায়গা প্রয়োজন হয় না।
  • সমস্ত বৈদ্যুতিক ডিভাইস চালানো যায় – হ্যাঁ, ইনভার্টার প্রায় যেকোনো ধরনের ডিভাইস চালানো যায়। একটি বৈদ্যুতিন সংকেতের মেরু বদল সঙ্গে এমন কোন শর্ত নেই যে আপনি কোন ধরনের সরঞ্জাম চালাতে পারবেন না। তবে হ্যাঁ, আপনি যদি ইনভার্টারের মাধ্যমে সব ধরনের বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি চালাতে চান, তাহলে তার জন্য আপনাকে একটি ভালো মানের উচ্চ ক্ষমতার ইনভার্টার বসাতে হবে, যাতে আপনি ভালো সুবিধা পেতে পারেন।
  • কোন জ্বালানীর প্রয়োজন হয় না – জেনারেটর চালানোর জন্য জ্বালানী যেমন পেট্রোল, ডিজেল লাগে যেখানে ইনভার্টারে এরকম কিছুই নেই। এতে কোনো ধরনের জ্বালানি লাগে না। এটি বিদ্যুৎ থেকে চার্জ করে সহজেই কাজ করে।

আরো পড়ুন: বারকোড কি, সম্পূর্ণ তথ্য | What Is Barcode In Bengali

ইউপিএস এবং ইনভার্টার মধ্যে পার্থক্য কি?

ইউপিএস এবং ইনভার্টার উভয়ের কাজ একই, পাওয়ার সাপ্লাই দেওয়ার জন্য, তবে উভয়ের কাজের ক্ষমতা আলাদা এবং দুটির মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে, আসুন আপনাকে সেগুলি সম্পর্কে বলি –

  • ইউপিএস সম্পূর্ণরূপে ব্যাটারির উপর নির্ভরশীল, অর্থাৎ এটি মেইন পাওয়ার দ্বারা চালিত হয় না। ব্যাটারিতে চলে। বৈদ্যুতিন সংকেতের মেরু বদল বিদ্যুত চার্জ করা হয়, এটি তারপর কাজ করে।
  • মেইন পাওয়ার সাপ্লাই না থাকার কারণে ইনভার্টারও বন্ধ হয়ে যায় কারণ কিছুক্ষণ পর বিদ্যুতের প্রয়োজন হয় কিন্তু ইউপিএস (UPS) এ বিষয়টিকে পাত্তা দেয় না। ক্ষমতা থাকুক আর না থাকুক, সে একই কাজ করে চলেছে।
  • ইউপিএস শুধুমাত্র কম্পিউটার, প্রিন্টার, স্ক্যানারে ব্যবহার করা হয়, যা পাওয়ার কাটার পর মাত্র 15-20 মিনিট কম্পিউটার চালু রাখতে পারে। বৈদ্যুতিক যন্ত্রের ধারণক্ষমতা এর চেয়ে অনেক বেশি, এটি সব ধরনের বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম দীর্ঘ সময় ধরে সচল রাখতে পারে।
  • UPS-এর দাম প্রায় 2000 টাকা, আর ইনভার্টারের দাম 10-12 হাজার টাকা৷

এই পোস্টে, আমরা ইনভার্টার সম্পর্কিত প্রতিটি ছোট-বড় বিষয় বিস্তারিতভাবে বলার চেষ্টা করেছি। আমরা প্রতিদিন যে জিনিসই ব্যবহার করি না কেন, এটি কী, কীভাবে কাজ করে সে সম্পর্কে আমাদের তথ্য থাকা উচিত। এর মাধ্যমে আপনি ঘরে বসেই আপনার সন্তানদের প্রাথমিক শিক্ষা দিতে পারেন, এতে তাদের আগ্রহ বাড়ে এবং বইয়ের জগৎ থেকে বেরিয়ে এসে তারা বাস্তব জ্ঞান লাভ করে।

FAQ –

প্রশ্নঃ ইনভার্টার কত ওয়াটের?

উত্তর: বিভিন্ন ইনভার্টারের বিভিন্ন ক্ষমতা থাকে।

প্রশ্নঃ ইনভার্টার কত প্রকার?

উত্তরঃ প্রধানত ২ প্রকার

প্রশ্নঃ ইনভার্টারের দাম কত?

উত্তর: বাজারে 2000 টাকা থেকে শুরু করে 20 হাজার টাকা পর্যন্ত ইনভার্টার পাওয়া যায়।

প্রশ্নঃ কিভাবে ইনভার্টার সংযোগ করবেন?

উত্তর: এর জন্য আপনাকে শুধুমাত্র একজন পেশাদারের সাহায্য নিতে হবে।

প্রশ্নঃ কিভাবে ইনভার্টার ব্যাটারি ব্যাকআপ বাড়ানো যায়?

উত্তর: ভালো মানের ব্যাটারি ব্যবহার করুন, ভালো ফল পাবেন।


iNFO বাংলা দেখার জন্য ধন্যবাদ

By Tanmoy

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *