তুলসী পাতার গুণাগুণ | Tulsi Leaves Benefits And Side Effects in Bengaliতুলসী পাতার গুণাগুণ | Tulsi Leaves Benefits And Side Effects in Bengali

তুলসী পাতার গুণাগুণ, উপকারিতা ও অপকারিতা (Tulsi Leaf (Leaves) Properties and Benefits and Side Effects In Bengali)

তুলসীর নাম শুনলেই আমাদের মনে ভেসে আসে পবিত্র গাছটি। তুলসী গাছটি এমন একটি উদ্ভিদ, যা ভারতের প্রায় প্রতিটি বাড়িতে পাওয়া যায়, এমনকি সবচেয়ে বড় এবং ছোট মানুষও এটি তাদের বাড়িতে লাগায়। ভারতে, এটি আপনার বাড়িতে স্থাপন করা শুভ বলে মনে করা হয়। ধর্মীয় বিশ্বাস ছাড়াও এর বৈজ্ঞানিক কারণও রয়েছে, তুলসী স্বাস্থ্যের দিক থেকে খুবই উপকারী। কথিত আছে, বাড়ির আঙিনায় তুলসী থাকার কারণে রোগবালাই ঘরে প্রবেশ করতে পারে না। প্রত্যেক হিন্দু মহিলা সকালে তুলসী পূজা করেন। তুলসীকে বহু যুগ ধরে ওষুধ হিসেবেও দেখা হয়েছে, এর পাতা থেকে শুরু করে ডালপালা পর্যন্ত সবকিছুই কিছু না কিছু উপকার দেয়।

ভারতীয় হিন্দুরা তুলসীকে দেবী মনে করে এবং আচার-অনুষ্ঠানের সাথে তার পূজা করে। হিন্দুরা অবশ্যই প্রসাদের সাথে ভগবানকে তুলসী নিবেদন করে। অনেক ওষুধেও তুলসী ব্যবহার করা হয়। ঘরে বসেই আমরা সহজেই অনেক রোগ থেকে মুক্তি পেতে পারি।

তুলসী পাতার গুণাগুণ (Properties of Tulsi leaves)

1তুলসী গাছ লাগালে এর সুবাস চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে।
2এটি শরীরের অভ্যন্তরীণ সমস্যা দূর করে।
3সর্দি-কাশি প্রতিরোধ করে।
4বায়ু বিশুদ্ধ করে।
5হজমের সমস্যা দূর হয়।
6সতেজতা দেয়।

তুলসী পাতার ব্যবহার (Tulsi Leaves Use)

  • এটি পিষে মুখে লাগালে ব্রণ ও দাগ দূর হয়।
  • তুলসী মেশানো পানি পান করলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।
  • এটি খেলে নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ দূর হয়।
  • তুলসীর তেল অনেক ব্যথায় ব্যবহার করা হয়।
  • তুলসী থেকে অনেক পানীয় তৈরি করা হয়।

তুলসীতে পাওয়া যায় পুষ্টিগুণ (Tulsi Leaves Nutritional Value)

1 কাপ অর্থাৎ 42 গ্রাম তুলসী পাতায় নিম্নলিখিত পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়:

সংখ্যাপরিপোষক পদার্থপরিমাণ
1.প্রোটিন1.3 গ্রাম
2.জল38.7 গ্রাম
4.মোট ক্যালোরি9.8
5.কার্বোহাইড্রেট1.1 গ্রাম
6.মোট চর্বি271 মিলিগ্রাম
7.ক্যালসিয়াম75 মিলিগ্রাম
8.আয়রন1.3 মিলিগ্রাম
9.সোডিয়াম1,7 মিলিগ্রাম
10.পটাসিয়াম125 মিলিগ্রাম
11.ম্যাগনেসিয়াম27 মিলিগ্রাম
12.ফসফরাস24 মিলিগ্রাম
13.ভিটামিন A C E K B6যথাক্রমে: (2237 iu, 7.6 mg, 339 mcg, 176 mcg, 66 mcg)

তুলসী পাতার উপকারিতা (Tulsi Leaf Benefits in Bengali)

তুলসীর অনেক প্রকার উপকারিতা রয়েছে যা নীচে দেখানো হল:

তুলসীর স্বাস্থ্য উপকারিতা (Tulsi Health Benefits)

জ্বর কমায়-

তুলসীতে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিবায়োটিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা জ্বর কমাতেও উপকারী। জ্বর হোক, ইনফেকশন হোক বা ম্যালেরিয়া, তুলসি তা কমাতে সক্ষম। আয়ুর্বেদে প্রধানত জ্বরের সময় তুলসীর ক্বাথ (Kwath) পান করার পরামর্শ দেওয়া হয়। এটি পান করলে খুব দ্রুত আরাম পাওয়া যায়। এটি শিশুদের জন্য বিশেষভাবে ভাল।

ক্বাথ তৈরির পদ্ধতি –

আধা লিটার পানিতে কিছু তুলসী পাতা এবং এলাচ গুঁড়া মিশিয়ে অর্ধেক না হওয়া পর্যন্ত ফুটিয়ে নিন। আপনি এটিতে দুধ এবং চিনি যোগ করতে পারেন। এখন প্রতি 2-3 ঘন্টা অন্তর রোগীকে দিতে থাকুন।

ডায়াবেটিসের বিরুদ্ধে কাজ করে-

তুলসি শরীরে ইনসুলিন তৈরি ও বজায় রাখার উপাদানকে দূর করে। তুলসি ব্লাড সুগার কমায়, যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখে।

আরো পড়ুন: একাকিত্ব থেকে মুক্তির উপায় | How to Deal with Loneliness In Bengali

মানসিক চাপ কমানো –

একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, তুলসি শরীরে মানসিক চাপ বাড়ায় এমন হরমোন কম করতে সাহায্য করে। একে অ্যান্টি স্ট্রেস এজেন্টও বলা হয়। তুলসি আমাদের সমস্ত কোষকে স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে এবং ভালোভাবে রক্ত ​​সঞ্চালন করে। অতিরিক্ত মানসিক চাপের ক্ষেত্রে চিকিৎসকরাও তুলসী খাওয়ার পরামর্শ দেন। অতিরিক্ত মানসিক চাপের ক্ষেত্রে 10-12টি তুলসী পাতা দিনে দুবার চিবিয়ে খেলে মানসিক চাপ অনেকাংশে কমে যাবে।

পাথরের সমস্যা দূর করে-

কিডনিতে পাথর হলে তুলসী দিয়ে সেই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। কিডনিতে পাথর মূলত রক্তে ইউরিক এসিড বৃদ্ধির কারণে হয়ে থাকে। তুলসি ইউরিক অ্যাসিড কমাতে সক্ষম। তুলসীতে উপস্থিত তেল এই পাথরকে ধ্বংস করে এবং তুলসীও এক ধরনের ব্যথা উপশমকারী, তাই এটি কিডনিতে পাথরের কারণে হওয়া ব্যথা থেকেও মুক্তি দেয়। তাই পাথরের সমস্যা দূর করার জন্য এটি একটি ঘরোয়া উপায়।

যেভাবে তুলসী পাতার ব্যবহার করবেন- তুলসীর রস বের করে তাতে মধু মিশিয়ে নিন। এখন অন্তত ৬ মাস প্রতিদিন পান করুন। কোন চিকিৎসা ছাড়াই কিডনি থেকে পাথর বেরিয়ে যাবে।

ক্যান্সারের মতো ভয়ঙ্কর রোগ থেকে মুক্তি পান-

তুলসীর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যের কারণে এটি তামাকের কারণে হওয়া স্তন ক্যান্সার এবং মুখের ক্যান্সার থেকে মুক্তি দেয়। প্রতিদিন তুলসী চিবিয়ে খেলে শরীরে ক্যানসার কোষের বৃদ্ধি রোধ করে।

ধূমপান ত্যাগে সহায়ক-

তুলসীতে রয়েছে অ্যান্টি-স্ট্রেস এজেন্ট, যা ধূমপান ছাড়তেও সাহায্য করে। মানসিক চাপ কমিয়ে সিগারেট খাওয়ার ইচ্ছা কমায়, যার কারণে আপনি সহজেই ধূমপান ত্যাগ করতে পারেন। সিগারেট খাওয়ার ইচ্ছা অনুভব করার সাথে সাথে কিছু তুলসী পাতা নিয়ে চিবানো শুরু করুন, অল্প সময়ের মধ্যেই আপনার ইচ্ছা চলে যাবে। এর পাশাপাশি তুলসী চিবানোর আরও একটি উপকারিতা রয়েছে, এত বছর ধরে ধূমপানের ফলে আপনার শরীরের যে ক্ষতি হয়েছে তা তুলসী থেকে পুষিয়ে যায়।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়-

তুলসী শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, যার কারণে সর্দি, কাশি, ফ্লু, ভাইরাস ইত্যাদি শরীরে তাদের প্রভাব দেখাতে পারে না। ঠাণ্ডা ও বৃষ্টির দিনে তুলসী মিশিয়ে চা পান করা খুবই উপকারী। আশেপাশে ঘটতে থাকা প্রতিটি রোগ থেকে আপনি সুরক্ষিত থাকবেন।

ব্যথা দূর করে-

তুলসী পাতা যেকোনো কারণে সৃষ্ট মাথাব্যথা সারাতে পারে। তুলসীতে রয়েছে ব্যথা উপশমকারী উপাদান, যা খেলে সব ধরনের ব্যথা থেকে মুক্তি মিলবে অনেকাংশে। যেভাবে তুলসী পাতার ব্যবহার করবেন- একটি পাত্রে জল নিন, তাতে কিছু তুলসী পাতা দিন, এবার সিদ্ধ করুন। এটিকে একটু ঠাণ্ডা হতে দিন, এতে একটি তোয়ালে ভিজিয়ে রাখুন, এটি চেপে নিন এবং আপনার মাথার চারপাশে বেঁধে দিন। মাথা ব্যথা খুব তাড়াতাড়ি চলে যাবে। এছাড়া তুলসী পাতার জায়গায় তুলসীর তেলও দিতে পারেন।

ডায়রিয়া ও বমি দূর করে-

তুলসীও এই সমস্যার সহজেই সমাধান করে। ডায়রিয়া হলে কিছু তুলসী পাতা পিষে তাতে মধু ও জিরার গুঁড়া মিশিয়ে নিন, এখন প্রতি ২ ঘণ্টা অন্তর রোগীকে দিন। অনেক স্বস্তি পাবেন। এছাড়া বমি হলে তুলসীর রস আদার রস ও ছোট এলাচ গুঁড়ো মিশিয়ে পান করতে হবে। ডায়রিয়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে এটি একটি ঘরোয়া উপায়।

আরো পড়ুন: বিয়ের জন্য রাশিফল ​​মেলানো কি আবশ্যক | Kundli Matching For Marriage In Bengali

অন্যান্য লাভ

  • আপনি যদি হাঁপানির সমস্যায় ভুগে থাকেন তাহলে তুলসী পাতা কালো লবণের সাথে মিশিয়ে চিবিয়ে খেতে থাকুন।
  • কুষ্ঠ রোগের মতো রোগও তুলসীর দ্বারা নিরাময় হয়। তুলসীর পেস্ট লাগালে সেরে যায়।
  • কানে ব্যথা বা শ্রবণশক্তি কমে গেলে তুলসীর রসে কর্পূর মিশিয়ে সামান্য গরম করে কানে লাগান, খুব তাড়াতাড়ি আরাম পাবেন।
  • তুলসী চিবানো শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্ক উভয়ের স্মৃতিশক্তিকে উন্নত করে।

ত্বকের জন্য তুলসীর উপকারিতা (Tulsi Leaves Benefits for Skin)

তুলসি ত্বকের উপকার করে, যার মধ্যে কয়েকটি নিম্নরূপ:

  • অনেক কসমেটিক পণ্য কোম্পানি তাদের পণ্যে একটি উপাদান হিসেবে তুলসী ব্যবহার করে কারণ এতে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। যা ত্বককে ব্যাকটেরিয়া থেকে রক্ষা করে।
  • তুলসী পাতা শুকনো বা রসের আকারে খেলে রক্ত ​​বিশুদ্ধ হয়, আপনার ত্বক উজ্জ্বল হয়। এছাড়া ব্রণের সমস্যাও সেরে যায় এবং ত্বক সুস্থ থাকে।
  • বেসন ও তুলসীর পেস্ট ত্বকে লাগালে কালো দাগ দূর হয়। ত্বকে তুলসী পাতা ঘষলে কালো দাগও দূর হয়।
  • আয়ুর্বেদ চিকিৎসকদের মতে, তুলসী ত্বকের সবচেয়ে বড় সমস্যাও সমাধান করতে সক্ষম। এর জন্য নিয়মিত মুখে তুলসীর পেস্ট লাগান।

চুলের জন্য তুলসীর উপকারিতা (Tulsi Leaves Benefits for Hair)

তুলসী চুলের জন্যও ভালো, এর অনেক উপকারিতা রয়েছে যা নিম্নরূপ:

  • চুল পড়ার প্রধান কারণ হল খুশকি এবং চুলকানি, এমন পরিস্থিতিতে প্রতিদিনের রুটিনে কয়েক ফোঁটা তুলসী তেল যোগ করলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন।
  • তুলসী, হিবিস্কাস এবং নিম পাতার পেস্ট লাগালে আপনার শিকড়ের চুলকানি রোধ হয় এবং চুল পড়ার সমস্যাও দূর হয়।
  • প্রতিদিন তুলসী তেল দিয়ে ম্যাসাজ করলে চুলে শক্তি যোগায়।
  • আপনার তুলসী খাওয়া বা তুলসীর রস পান করা উচিত, কারণ এটি চুলের জন্যও উপকারী।
  • নারকেল তেলের সঙ্গে তুলসীর গুঁড়ো মিশিয়ে চুলের গোড়ায় ম্যাসাজ করুন। কয়েকদিনের মধ্যেই আপনার চুল হয়ে উঠবে লম্বা, ঘন ও চকচকে।

তুলসী পাতা থেকে ক্ষতি (Tulsi Leaves Side Effects)

তুলসীর একটি অনন্য সুবিধা রয়েছে যে এটি খাওয়ার খুব বেশি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই এবং সহজেই আপনার বাড়িতে লাগানো হয়, যা আপনি যখনই চান ব্যবহার করতে পারেন। তবে কিছু অসুবিধা রয়েছে যা নিম্নরূপ:

  • খাদ্য বা ওষুধের আকারে তুলসীর অতিরিক্ত গ্রহণ ইউজেনল ওভারডোজের সাথে যুক্ত। বলা হয় ইউজেনল শ্বাসকষ্টের সমস্যা কমায়, তবে অতিরিক্ত মাত্রায় বিষক্রিয়া হতে পারে। এর সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে দ্রুত শ্বাস-প্রশ্বাস, প্রস্রাবে রক্ত এবং কাশির সময় রক্ত।
  • তুলসি রক্তকে পাতলা করে তাই অন্য কোনো ওষুধের সঙ্গে খাওয়া উচিত নয়।

আশা করি তুলসী পাতার উপকারিতা পড়ার পর আপনি এর উপকারিতা বুঝতে পেরেছেন এবং আজ থেকেই এর ব্যবহার শুরু করবেন। যদি আপনার বাড়িতে না থাকে তবে আজই কোথাও থেকে এনে আপনার বাড়িতে এটি স্থাপন করুন, আপনি ঘরে সতেজতা অনুভব করবেন।


iNFO বাংলা দেখার জন্য ধন্যবাদ

By Tanmoy

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *